মমতা বালা ঠাকুর শান্তনু এবং সুব্রতকে মতুয়াদের জন্য বিজেপি ছেড়ে টিএমসিতে যোগ দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন।

মমতা বালা ঠাকুর শান্তনু এবং সুব্রতকে মতুয়াদের জন্য বিজেপি ছেড়ে টিএমসিতে যোগ দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন।

পাঁচ বিজেপি বিধায়ক হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপ ছেড়েছেন

একুশের নির্বাচনের পর থেকেই বিজেপি ভেঙে পড়ছে। এর জেরে বিজেপিতে রদবদল হচ্ছে। সম্প্রতি নতুন রাজ্য কমিটি গঠনের পাশাপাশি 30 জেলা সভাপতিকে বদলি করা হয়েছে। আর তারপরেই মতুয়া সম্প্রদায়ের পাঁচ বিজেপি বিধায়ক হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপ ছেড়ে চলে যান। এর পর বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাদ্দার জয়ের জন্য সময় চাইলেন।

সুব্রত-শান্তনুরা তৃণমূলে ফিরে আসুন, মমতাবালাকে ডাকুন

সুব্রত-শান্তনুরা তৃণমূলে ফিরে আসুন, মমতাবালাকে ডাকুন

এই সময়েই পাল্টা জবাব দেন প্রাক্তন তৃণমূল সাংসদ ও ঠাকুরনগরের সাধারণ সম্পাদক মমতাবালা ঠাকুর। তিনি বলেন, সুব্রত-শান্তনুরা তৃণমূলে ফিরে আসুন। বিজেপি বিধায়করা বুঝতে পেরেছেন যে মানুষ তাদের থেকে দূরে সরে যাচ্ছে। মতুয়ারা সরে যাচ্ছে। মতুয়ারা বিজেপির সঙ্গে নেই। তাই শান্তনু ও সুব্রতকে তৃণমূলে যোগ দেওয়ার আহ্বান জানান তিনি।

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মতুয়াদের জন্য কিছু করেছেন

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মতুয়াদের জন্য কিছু করেছেন

সাংসদ শান্তনু ঠাকুর বা বিধায়ক সুব্রত ঠাকুর যদি বিজেপি ছেড়ে যান, তৃণমূল তাদের স্বাগত জানাবে, তিনি বলেছিলেন। মতুয়ারাও স্বাগত জানাবেন। তবে একই সঙ্গে তিনি বলেন, তাদের বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিতে হবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বা অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে। তবে আমি শুধু এটুকু বলতে পারি মতুয়ার জন্য কেউ যদি কিছু করে থাকেন তা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

বিজেপির ধোঁকা ধরেছে মতুয়ারা

বিজেপির ধোঁকা ধরেছে মতুয়ারা

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, মতুয়াদের হাতে বিজেপির চালাকি ধরা পড়েছে। তারা এখন বিজেপি-বিদ্বেষী হতে শুরু করেছে। অনেকেই আমাকে বলেছেন আমরা ভুল করেছি। আমরা তৃণমূলে ফিরে যেতে চাই। আমি তাদের বলেছি, দয়া করে আবেদন করুন, দলের সুপ্রিমো মমতা ব্যানার্জি আপনাকে নিরাশ করবেন না।

মতুয়ার দাদার বাড়ি এখন রাজনৈতিকভাবে বিভক্ত

মতুয়ার দাদার বাড়ি এখন রাজনৈতিকভাবে বিভক্ত

তিনি আরও বলেছিলেন যে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যদি তাদের দলে ফিরে আসেন তবে তারা একসাথে আরও ভাল করতে পারবেন। মতুয়ার দাদার বাড়ি এখন রাজনৈতিকভাবে বিভক্ত। মঞ্জুলকৃষ্ণ ঠাকুরের দুই ছেলে শান্তনু ও সুব্রত বিজেপি শিবিরে। আর কপিল কৃষ্ণ ঠাকুরের স্ত্রী মমতাবালা ঠাকুর তৃণমূলে। এক সময় মঞ্জুলকৃষ্ণও তৃণমূলে ছিলেন। কিন্তু বর্তমান বিভাগে গাইঘাটার ঠাকুরবাড়ি দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে পড়েছে।

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দাবি, তিনি তৃণমূলে ফিরতে চান

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দাবি, তিনি তৃণমূলে ফিরতে চান

ঠাকুরবাড়ির দ্বিমুখী বিভাজনের ফলে মতুয়াভোটও বিভক্ত। 2019 সালের লোকসভা নির্বাচন এবং 2021 সালের বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপি লাভবান হয়েছে। কিন্তু মতুয়ারা বিনিময়ে কিছুই পায়নি। তাই বিজেপির চাল বুঝতে পেরে এ বার তৃণমূলে ফিরতে চান তাঁরা, দাবি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের।

Leave a Comment